আমরা রোজগার তো করি কিন্তু কোন খাতে কতটাকা ব্যয় করব, কতটাকা আমাদের সঞ্চয় করা উচিত এই বিষয় টিকে আমরা সেভাবে গুরুত্ব দিই না কিন্তু সঞ্চয় ততোটাই গুরুত্ব পূর্ণ যতটা অর্থ রোজগার। তাই আসুন দেখে নিই সেই পাঁচটি সহজ ধাপ কি কি।

Savings:  এই অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা র বাজারে job security অনেক ক্ষেত্রেই পাওয়া যায় না। তাই emergency fund হিসেবে আপনার রোজগারের ছয় গুণ পরিমাণ টাকা আপনার savings account এ রাখুন। যেমন ধরুন যদি আপনার রোজগার মাসে ১০০০০ টাকা হয় তাহলে আপনার savings account এ এক লাখ বিশ হাজার টাকা রাখুন emergency fund হিসেবে। এটিকে আপনি FD ও করতে পারেন তাতে interest rate টি বেড়ে যাবে।

Loan: প্রথমে আপনার কোন কোন খাতে কতটাকা loan আছে তার একটি list তৈরি করুন। এর মধ্যে যে সব laon এ আপনাকে ১১-১৪% interest দিতে হয় সেগুলোকে আগে মেটানোর চেষ্টা করুন। যত তাড়াতাড়ি loan পরিশোধ করতে পারবেন তত কম সুদ দিতে হবে।

Insurence: আপনার  সারা জীবনের সঞ্চয় medical bill ভরতে যাতে শেষ না হয়ে যায় সেজন্যে পুরো family র জন্য একটি medical insurance প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে আপনি আপনার  income অনুযায়ী যে কোনো term plan নিতে পারেন।
       এবার আসি life insurance এর ক্ষেত্রে আমরা যে ভুল টা করি সেই বিষয়ে। Maturity এর পর অনেকগুলো টাকা একসঙ্গে পাওয়া যাবে এই আশায় পরিবারের সকলের নামে একটা করে LIC করাটা বুদ্ধিমানের কাজ নয়। বাড়ির earning member এর নামে life insurance থাকলেই যথেষ্ট।
       Life insurance এর জন্য সব থেকে সহজ plan বাছুন। আপনার age এবং income অনুযায়ী সেই plan ঠিক করুন।
       তবে  সহজ নিয়ম হলো আপনার রোজগার এর বিশ গুণ টাকা আপনার পরিবার যাতে return পায় সেই হিসাব করে insurance নিতে পারেন। অর্থাৎ আপনার রোজগার যদি মাসে ২০,০০০ হয়, তাহলে আপনার insurance coverage হওয়া উচিৎ ৪ লক্ষ টাকার।
       এমন ভাবে insurance এর কাগপত্রগুলো তৈরী করুন যাতে আপনার অবর্তমানে আপনার স্ত্রী ও সন্তানরা সেই টাকা সহজে তুলতে পারে।

Investment: এইটি হচ্ছে সবচেয়ে important ধাপ। যদি আপনার বয়স কম হয় বা আপনার বাচ্চারা ছোট থাকে ও তাদের education এ খরচ কম থাকে তাহলে একটু research করে ভালো কোনো stock এ invest করতে পারেন। এটি ঝুঁকি সাপেক্ষ হলেও আপনাকে good return দিতে পারে।
     আপনি যদি ঝুঁকি নিতে না চান তাহলে সবচেয়ে ভালো উপায় হলো systematic investment plan বা SIP যেখানে প্রতি মাসে fixed একটা amount invest করে ১৫-২০ বছর পর ভালো return পেতে পারেন।

       Gold এর price যেহেতু ঊর্ধ মুখী তাই gold এ invest করেও আপনি ভালো return পেতে পারেন। তবে physical gold এর থেকে digital gold অনেক বেশি লাভজনক। Digital gold এ  invest করতে চাইলে sovereign gold bond কিনতে পারেন যা safe এবং easy উপায় নিজের income বাড়ানোর।

Retirement plan: আপনি National Pension scheme বা NPS এ প্রতিমাসে সামান্য কিছু টাকা invest করে retirement এর পর monthly একটা amount pension হিসেবে পেতে পারেন।
          যেমন ধরুন এখন যদি আপনার বয়স ৩৫ হয় তাহলে ২৫ বছরের জন্য monthly ১০০০ টাকার NPS plan কিনতে পারেন। এক্ষেত্রে যদি আপনি ৮% rate এ return পান তাহলে আপনার বয়স যখন ৬০বছর হবে তখন প্রতিমাসে ৫,০০৬২ টাকা pension হিসেবে পেতে পারেন।

          সবশেষে বলতে চাই মাসে salari পাওয়ার পর প্রথমেই ২০% টাকা সরিয়ে রাখুন invest এর জন্য। একটা জায়গাতেই সব টাকা invest করতে যাবেন না। Savings এ কিছু রাখুন emergency fund হিসেবে। একটা medical insurance এবং একটা life insurance কিনুন। Stock এ invest করতে না চাইলে SIP অবশ্যই করুন। এবং সবশেষে retirement এর জন্য কিছু টাকা এখন থেকেই invest করুন। এই পাঁচটি ধাপ follow করে আপনার রোজগার কে সঠিক ভাবে manage করুন।