জরুরি তহবিল বলতে সেই পরিমান অর্থ কে বোঝায় যা আপনি সরিয়ে রেখেছেন কোনো আপত্কালিন অবস্থার মোকাবিলা করার জন্য। ভবিষ্যতে কি হবে ত আমরা কেউ জানি না। হতে পারে আপনার অর্থনৈতিক অবস্থা খুব ভালো হয়ে গেলো কিংবা তার উল্টোটা হওয়া অস্বাভবিক কিছু নয়। তাই সব রকম পরিস্থিতির জন্য আগাম প্রস্তুত থাকলে আমরা মানসিক ভাবে অনেকখানি চিন্তামুক্ত থাকতে পারি।  

বর্তমান অনিশ্চয়তার মাঝে ব্যবসায় অবনতি বা চাকরী চলে যাওয়ার মত ঘটনা আকছার শোনা যায়। এই পরিস্থতিতে সেই মানুষ টি বা তার পরিবার যে কি অসহায় বোধ করেন তা আমরা কল্পনাও করতে পারি না। তাই যে সব অর্থনীতিক পরিস্থিতি আপনার নিয়ন্ত্রণের বাইরে তার জন্য তৈরি করা হয় জরুরি তহবিল।

Emergency fund আপনাকে যেকোনো দুঃখজনক ও দুর্ভাগ্য জনক অবস্থা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করে। এখন প্রশ্ন হলো এই ফান্ড এ কত টাকা রাখা উচিৎ –

এটির কোনো নির্দিষ্ট সীমারেখা নেই। এটি নির্ভর করে আপনি কত রোজগার করেন, আপনার মাসিক ব্যয় কত এবং আপনার আদৌ কোন সঞ্চয় আছে কিনা তার ওপর। তবে অধিকাংশ অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ রা ( financial experts) পরামর্শ দেন যে আপনার মাসিক রোজগার এর তিন গুণ পরিমাণ থেকে শুরু করে ছয়গুণ পরিমাণ পর্যন্ত টাকা এই তহবিলে রাখা উচিত। এর বেশিও আপনি রাখতে পারেন আপনার সামর্থ্য থাকলে।

অর্থাৎ আপনার মাসিক রোজগার যদি ২৫,০০০ টাকা হয় তাহলে এর তিনগুণ মানে ৭৫,০০০ থেকে শুরু করে ছয়গুণ মানে দেড় লক্ষ টাকা পর্যন্ত আপনি আপনার জরুরি তহবিলে রাখতে পারেন। হঠাৎ ব্যবসায় লোকসান বা চাকরি হারানোর কারণে আপনার রোজগার বন্ধ হয়ে গেলে আপনি অন্ততঃ পক্ষে ছয়মাস আপনার সংসার খরচ চালাতে পারবেন এবং হাতে অনেক টা সময় পাবেন নিজের ব্যবসাকে দাঁড় করাতে কিংবা পুনরায় নতুন চাকরী খুঁজতে।

আপনি যদি কোনো দুর্ভাগ্যজনক accident এর সম্মুখীন হন বা কোনো কঠিন রোগের শিকার হন তাহলে অনেকগুলো টাকা একসঙ্গে জোগাড় করা আপনার পক্ষে সম্ভব নাও হতে পারে। সেক্ষেত্রে যদি আপনার এমার্জেন্সি ফান্ড এ টাকা থাকে তা অনায়াসে কাজে আসবে।

যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন বন্যা বা সাইক্লোন যা আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে তার থেকে কিছুটা রেহাই পেতে সাহায্য করে এই ফান্ড।

Emergency fund কে সঞ্চয় হিসেবে ধরবেন না। এই অর্থ দিয়ে এমন কিছু করবেন না যা আপনার না করলেও চলত। যেমন কোথাও বেড়াতে যাওয়া বা নতুন কোনো গেজেট কেনা ইত্যাদি।

টাকা চোখের সামনে থাকলেই খরচ করে ফেলার প্রবণতা বেড়ে যায়। তাই এই টাকা বাড়িতে রাখবেন না । Bank এ রাখুন। এতে চুরি যাবার ভয় ও থাকে না। তবে সব টাকা সেভিংস একাউন্ট এ রাখার দরকার নেই। ফান্ড এর মোট অংশের অর্ধেক পরিমাণ টাকা রাখুন সেভিংস একাউন্ট এ যাতে হঠাৎ প্রয়োজনে আপনি সহজেই তা তুলতে পারেন। বাকি অর্ধেক পরিমাণ টাকা ফিক্সড ডিপোজিট (FD)  করুন বা liquid fund এ রাখুন। FD  এবং liquid fund লাভজনক কারণ এগুলো আপনাকে সেভিংস এর তুলনায় বেশি হারে রিটার্ন দেবে।

এতো পরিমাণ টাকা জমানো প্রথমে আপনার কাছে অস্বাভাবিক বা অসম্ভব মনে হতে পারে। তবে বিপদ যেহেতু আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে তাই আমাদেরকেই দায়িত্বশীল হয়ে এই তহবিল গঠনের কাজ শুরু করতে হবে। সময় লাগবে ঠিকই তবে প্রতিমাসে কিছু কিছু করে টাকা সরিয়ে রাখুন। দেরিতে হলেও লক্ষ্যে ঠিক পৌঁছবেন। এই  সঞ্চয় আপনাকে  অনেকখানি  শক্তি ও সাহস যোগাবে।